যে গ্রামে সবাই ঘরজামাই থাকে


বিয়ের পর মেয়েরা সাধারণত শ্বশুরবাড়িতে যায়। বিয়েপরবর্তী জীবন স্বামীর বাড়িতেই কাটায় তারা। কিন্তু ভারতের উত্তর প্রদেশের হিংগুল গ্রামে এর পুরোটাই উল্টো। অর্থাৎ সেখানে বিয়ের পর মেয়েরা নয় বরং ছেলেরা যায় শ্বশুরবাড়ি। মানে সবাই ঘরজামাই থাকেন।

তবে এই প্রথা চালু হয়েছে খুব বেশি দিন হয়নি। এক সময় এই গ্রামের মেয়েরাও শ্বশুরবাড়ি যেতো। কিন্তু কয়েক দশক আগে গ্রামের বয়স্করা বিয়ের পর মেয়েদের নিজেদের বাড়িতেই রেখে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। অর্থাৎ ছেলেরা বিয়ের পর ঘরজামাই থাকবেন— এই প্রথা শুরু হয়। গ্রামের সব ধর্মের মানুষই এই প্রথা মেনে চলেন।

কিন্তু কেন এই প্রথা চালু হয়ে গেলো? মূলত, মেয়েদের দূরে বিয়ে দেওয়ার সময় শ্বশুরবাড়ি সম্পর্কে সব তথ্য সঠিক হয় না। যার কারণে পরবর্তী সময়ে নানা সমস্যা তৈরি হয়। এছাড়া নারী নির্যাতন, যৌতুকের জন্য হত্যার মতো নানা ঘটনা ঘটে থাকে। তাই দিন দিন এই প্রথা চালু হয়ে যায়।

তবে শুধু হিংগুল গ্রাম নয়, ভারতের অনেক গ্রামেই ঘরজামাই রাখার প্রচলন আছে। মধ্যপ্রদেশের বীতালি গ্রামে ছেলেরা বিয়ের পর শ্বশুর বাড়িতে থাকেন। নরসিংহপুর জেলার এই গ্রামটি স্থানীয়দের কাছে ‘জামাইয়ের গ্রাম’ নামেও পরিচিত।


আজব খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

পরবর্তী পোস্ট

প্রেমিকা নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি

শুক্র সেপ্টে ১৮ , ২০২০
যে কোনো প্রতিষ্ঠানে লোকবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী বিভিন্ন পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হয়। কিন্তু প্রেমিকা পদে চাকরির কথা কি কখনো শুনেছেন? মালয়েশিয়ার এক ব্যক্তি সম্প্রতি ‘প্রেমিকা’ নিয়োগের জন্য এমনই বিজ্ঞপ্তি দিয়েছেন। মুহাম্মদ নকিব নামের ওই ব্যক্তি পেশায় একজন চিকিৎসক। মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটারে তার নিজের অ্যাকাউন্টে প্রেমিকার খোঁজে তিনি বিজ্ঞাপনটি দিয়েছেন। নকিবের মতে, সব সময় প্রেমিকা হয়ে একজনের সঙ্গে থাকাটা কোনো চাকরির চেয়ে কোনো অংশেই কম নয়। তার বিজ্ঞাপনে বলা হয়, এই পদে নিয়োগ পেতে একজন […]