নিলামে উঠল হিটলারের টয়লেট সিট


অনেকেই শখ করে পুরনো জিনিস জমায়। কখনও পুরনো টাকা, পুরনো আসবাবপত্র বা কখনও পুরনো বই। অনেকেই আবার প্রথম বিশ্বযুদ্ধ বা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়কার জিনিসও জমান। যাদের এই শখ রয়েছে তাদের মধ্যে কেউ কি কখনও টয়লেট সিট জমানোর কথা ভেবেছেন?

এই শখের কথা অবাকই হবেন হয় তো, ভাবা তো দূরের কথা! কিন্তু একটি অকশন সাইটে এই টয়লেট সিটই নিলামে বিকোচ্ছে। তাও আবার মোটা টাকার বিনিময়ে!

তবে এই টয়লেট সিট কোনও সাধারণ টয়লেট সিট নয়। সম্পূর্ণ কাঠের তৈরি এই সিটটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়কার। ব্যবহার করেছিলেন খোদ অ্যাডলফ হিটলার। আর তার জন্যই নিলামে উঠেছে এই টয়লেট সিটটি। দাম রাখা হয়েছে বাংলাদেশি মুদ্রার প্রায় সাড়ে ১৬ লক্ষ টাকা। আপাতত নিলাম সংস্থার ওয়েবসাইটে এমনটিই দেখা যাচ্ছে। জানা গেছে, আগামী সপ্তাহে নিলামের একটি অনুষ্ঠানে টয়লেট সিটটি রাখা হবে।

যে ভাবে পাওয়া গেল এই টয়লেট সিট : বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট থেকে জানা গেছে, এই টয়লেট সিটটি বহু বছর আগে হিটলারের একটি ব্যক্তিগত বাথরুম থেকে চুরি করেছিলেন একজন আমেরিকান সেনা। এই সিটটি রাখা ছিল বারগফে।

রাগনভাল্ড বোর্চ নামের ওই আমেরিকার সেনা সংবাদমাধ্যমকে জানান, তাকে একদিন বারগফে তরফে বলা হয়, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্ত ওই জায়গা থেকে যা চান নিয়ে যেতে পারেন। তখন তিনি আগে ওই কাঠের টয়লেট সিটটি নেন। যা বেভারিয়ান আল্পসে হিটলারের ব্যক্তিগত বাথরুমে রাখা ছিল।

এই টয়লেট সিটটি নিয়ে যেতে দেখে তাকে বাকি সেনারা প্রশ্ন করেছিল, কেনো এই কাজ করছেন তিনি! বোর্চ উত্তর দিয়েছিলেন, যেখানে হিটলার মল ত্যাগ করতেন, সেটাও ঐতিহাসিক!

টয়লেট সিটটি এর পর তিনি নিজের নিউজার্সির বাড়িতে নিয়ে যান এবং বাড়ির নিচে এটিকে সাজিয়ে রাখেন। এবার এই সিটটিকেই তার পরিবারের লোক অকশনে দিচ্ছে।

আলেকজান্ডার অকশন নামে একটি সংস্থার পক্ষ থেকে ভলা হচ্ছে, এটি অন্যতম আকর্ষণীয় জিনিস তাদের কাছে, যারা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কোনো সামগ্রী নিজের কাছে রাখতে চান।

সংস্থার পক্ষ থেকে টয়লেট সিটটির বিবরণও দেওয়া হয়েছে। বিবরণে দেওয়া হয়েছে, এটি হিটলারের পর থেকে আর কখনও কেউ ব্যবহার করেননি। এটি সম্পূর্ণ কাঠের ও পিছনে দু’টি স্টিলের হুক আছে।

প্রসঙ্গত, হিটলার এই বেভেরিয়ান আল্পসে নিজের জীবনের বেশিরভাগ সময়টাই কাটিয়েছেন। ফলে এই বাথরুম এবং টয়লেট সিটটিও তিনি অনেকবারই ব্যবহার করেছেন বলে গবেষকদের ধারণা।


আজব খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

পরবর্তী পোস্ট

স্ত্রী হাসপাতালে, শাশুড়িকে নিয়ে পালিয়ে গেলেন জামাই!

বৃহঃ ফেব্রু ৪ , ২০২১
শাশুড়িকে নিয়ে পালিয়ে গেলেন জামাই। স্ত্রীকে ফিরে পেতে জামাইয়ের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেছেন শ্বশুর। ঘঠনাটি লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার ফকিরপাড়া ইউনিয়নের রমনীগঞ্জ গ্রামে। মঙ্গলবার (২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে থানায় এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করেন শ্বশুর নাছির উদ্দিন (৫০)। তিনি নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার উত্তর সোনাখুলি গ্রামের মৃত আব্দুল আজিজের ছেলে। অভিযুক্ত জামাই এমদাদুল ইসলাম ওরফে এনদা (৩৫) উপজেলার ফকিরপাড়া ইউনিয়নের রমনীগঞ্জ গ্রামে তরিফ উদ্দিনের ছেলে। তিনি বড়খাতা বাজারের হাজি জামে মসজিদ এলাকার অটোরিকশার পার্স ব্যবসায়ী। গত ২১ জানুয়ারি শাশুড়িকে নিয়ে পালিয়েছেন তিনি। এদিকে, […]