১ বাবা, ২৭ মা, ভাইবোন ১৫০!


৬৪ বছরের এক ব্যক্তির স্ত্রী ২৭ জন। আর তার ছেলেমেয়ের সংখ্যা ১৫০ জন। ওই পরিবারের সদস্য ১৯ বছরের মার্লিন ব্লাকমোর সম্প্রতি নিজের এই বিশাল পরিবারে কথা শেয়ার করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়।

কারও জন্মদিনে কীভাবে উৎসব হয় তাদের বাড়িতে, বা এত সংখ্যক ভাইবোনের সঙ্গে স্কুলে যাওয়ার অভিজ্ঞতা নজর কেড়েছে নেটাগরিকদের। কানাডার ব্রিটিশ কলম্বিয়ার বাউন্টিফুলে তার বিশাল পরিবারের সঙ্গে থাকেন মার্লিন। খবর আনন্দবাজার ও ডিএনএ।

মার্লিন ছাড়াও তার দুই ভাই মুরারি এবং ওয়ারেনও নিজেদের পরিবারের কথা শেয়ার করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। এতজনের সঙ্গে থাকা যেমন মজার তেমনই অস্বস্তিরও। ওই তিন ভাইয়ের সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টে উঠে এসেছে সেই বিষয়টিও।

মার্লিন সংবাদমাধ্যমকে জানান, ১৫০ ভাইবোনের মধ্যে সবচেয়ে বড় জনের বয়স ৪৪ বছর। সবচেয়ে ছোটজনের বয়স এক বছর। প্রত্যেকে তাদের গর্ভধারিণী মাকে ‘মাম’ বলে ডাকেন। বাকি সৎ-মায়েদের ডাকেন ‘মাদার’ বলে। দুই ভিন্ন মায়ের সন্তান। কিন্তু তাদের জন্ম একই দিনে-তাদের বাড়িতে এ রকম উদাহরণও রয়েছে।

তিনি আরও জানিয়েছেন, ভাইবোনেরা একই স্কুলে পড়ে। সেই স্কুলের মালিক তার বাবা উইনস্টোন। অস্বাভাবিক বড় পরিবারে নিজের ভাইবোনদের সামলাতে সামলাতে বাইরের কারও সঙ্গে তাদের সেভাবে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে না। বাবা, ১৫০ ভাইবোন এবং ২৭ জন মাকে নিয়ে বিশাল পরিবারের সদস্যরা কেউ আলাদা থাকেন না।

সবাই মিলেমিশে একই বাড়িতে থাকেন। তাদের সেই সুখনীড়ের নাম মোটেল হাউজ। এতজনের জন্য বাজার থেকে জিনিস কেনাও কতটা সমস্যার তা-ও তারা হাড়ে হাড়ে টের পান। সে জন্যই তাদের বাড়ির মধ্যেই হয় শাকসবজির চাষ।


আজব খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

পরবর্তী পোস্ট

২ হাজার বছরের পুরনো কবরে মিলল সোনার জিভ বসানো মমি

বুধ ফেব্রু ৩ , ২০২১
মিশরের বিখ্যাত তাপোসাইরিস ম্যাগনা মন্দির এলাকার আশপাশে চলছিল খনন কাজ। ইউনিভার্সিটি অফ সান্তো দমিনগো এবং তার তরফে অধ্যাপক ক্যাথলিন মার্টিনেজের তত্ত্বাবধানে এই খনন কাজ থেকে ১৬টি পাথরের কবর খুঁজে পাওয়া গেছে। আর তার মধ্যেই একটি মমির মুখের ভেতরে কিছু একটা চকচক করতে দেখে অবাক হয়ে যান গবেষকরা। পরে দেখা যায় ওটা আসলে একটা সোনার জিভ! সোনার জিভটি নিয়ে আপাতত নানা জল্পনা চলছে প্রত্নতাত্বিক মহলে। সঠিক কারণটি নিশ্চিত করে বলা যদিও সম্ভব নয়। অনেকের অনুমান, এই মৃত মানুষটি যাতে পাতালে গিয়ে […]